অটোচালককে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন, উদ্ধার করে চিকিৎসা দিচ্ছে পুলিশ

0
158
অটোচালকে উদ্ধার করে চিকিৎসা দিচ্ছে পুলিশ

স্টাফ রিপোর্টার
ঝালকাঠিতে অটোচালকের হাত-পা বেধে গাছে সাথে লটকিয়ে সারারাত নির্যাতনের খবর পেয়ে সকালে থানা পুলিশ খবর তাকে উদ্ধার করে। প্রথমে ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে নিয়ে গেলে অটোচালক গুরুতর অসুস্থ হওয়ায় তাকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরই বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয়ে প্রেরণ করা হয়। বর্তমানে সেখানে চিকিৎসাধীন আছে সাইদুল ইসলাম।
আহত সাইদুল সদর উপজেলার দক্ষিণ পিপলিতা গ্রামের মতিউর রহমা জোমাদ্দারের পুত্র। গত ১৪ আগস্ট রাতে নিজ গ্রামে এ নির্মম নির্যাতনের ঘটনা ঘটে। বুধবার (১৯ আগস্ট) বিকেলে উত্তেজিত স্থানীয়রা সন্ত্রাসী হামলাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করেছেন।
এলাকাবাসী জানান, ১৪ আগস্ট ঝালকাঠি সদর উপজেলার দক্ষিণ পিপলিতা গ্রামের মহিষকাটা নামক স্থানে রাত ১১টার দিকে অটোচালক সাইদুল ইসলাম জমাদ্দারের সাথে স্থানীয় একটি প্রভাবশালী মহলের জমি সংক্রান্ত বিরোধে হাত-পা বেধে অমানবিক নির্যাতন করে কাটাযুক্ত মাদার গাছের সাথে সারা রাত বেধে রাখে। এলাকাবাসী জানান, দক্ষিণ পপিলিতা গ্রামের মোতালেব তালুকদারের পুত্র কেওড়া ইউনিয়ন যুবলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মাসুদ রানা, আঃ খালেক হাওলাদরের ছেলে মোহাম্মদ সালেহ, শাহেদ আলীর পুত্র আলতাফ ডাকুয়াসহ ১০/১৫ জন সন্ত্রাসী মিলে রাত অনুমান ১১টার দিকে শহর থেকে অটো গাড়ী নিয়ে সাইদুল নিজ বাড়ীতে ফেরার পথে দক্ষিণ পিপলিতা গ্রামের মহিষকাটা নামক স্থানে পৌছলে তাকে আটক করে নির্যাতন চালাতে শুরু করে। এক পর্যায়ে মৃত্যু নিশ্চিত করতে হাত পা কাটাযুক্ত মাদার গাছের সাথে সারা রাত বেধে রাখে। পরের দিন সকালে স্থানীয় মেম্বর ও লোকজন এসে তাকে উদ্ধারের চেষ্টা চালালে ঐ সন্ত্রাসীরা তাতে বাঁধা দেয়। পরে খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে গাছের সাথে হাত পা বাধা সাইদুলকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য ঝালকাঠি সদর হাসপাতালে প্রেরণ করে। বর্তমানে আহত সাইদুল বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে মুমুর্ষ অবস্থায় চিকিৎসাধীন আছে।
এ বিষয়ে স্থানীয় ২নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য মো. রাকিব উদ্দিন কেনান জানান, জমিজমা নিয়ে বিরোধের কারণে মাসুদ রানা, “মোহাম্মদ সালেহ ও আলতাফ ডাকুয়া গং অটো ড্রাইভার সাইদুল জমাদ্দারকে হত্যার উদ্দেশ্যে নির্মমভাবে হামলা করে মাদার গছের সাথে সারারাত বেধে রাখে। পরের দিন আমি খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গেলে সন্ত্রাসীরা আহত সাইদুলকে উদ্ধার করতে আমাকে বাঁধা দেয়। পরে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার কওে নেয়।”
এ বিষয়ে ঝালকাঠির সদর থানার অফিসার্স ইনচার্জ মো. খলিলুর রহমান জানান, বিরোধীয় জমিতে সাইদুল ঘর তুলতে গেলে প্রতিপক্ষরা তাকে মারধর করে। পুলিশ গিয়ে তাকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে প্রেরণ করে। এখন পর্যন্ত এ ঘটনায় কোন অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে তদন্ত করে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
বুধবার (১৯ আগস্ট) বিকালে পিপলিতা বাজারে এলাকার শতশত লোক জমায়েত হয়ে সাংবাদিকদের নিকট এ নির্যাতনের ঘটনার বর্ণনা করে উল্লেখিত সন্ত্রাসীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করেন। এলাকাবাসী জানান, অটো চালক সাইদুল নির্দোষ ও নিরীহ মানুষ। তাকে এভাবে হামলা ও নির্যাতন করায় প্রধানমন্ত্রী, ঝালকাঠির জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্ট সকলের নিকট সুবিচার প্রার্থনা করেন।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here