1. admin@dainikshatakantha.com : dainikshatakantha :
বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ০৫:২৫ পূর্বাহ্ন

নলছিটি ইউএনও’র হস্তক্ষেপে বন্ধ হলো কলেজ খেয়াঘাটের অতিরিক্ত ভাড়া আদায়

  • প্রকাশিত : রবিবার, ১৩ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ১৭৪ বার পড়া হয়েছে
অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধ

স্টাফ রিপোর্টার
ঝালকাঠি কলেজ খেয়াঘাটে দীর্ঘদিনের ভাড়া ৫ টাকা। করোনা ভাইরাস পরিস্থিতিতে প্রথমে ৫০/১০০ টাকা করে, পরে ২০ টাকা, এরপর দীর্ঘদিন পর্যন্ত ১০ টাকা করে আদায় করছে ট্রলারের মাঝিরা। গত ১ সেপ্টেম্বর থেকে সরকার পূর্বের ভাড়ায় ফিরতে নির্দেশ দেয়। কিন্তু সরকারি নির্দেশ অমান্য করে ৫ টাকার স্থলে ৭ টাকা আদায় করে ট্রলারে খেয়া পারাপারের মাঝিরা। ১০ টাকার একটি নোট দিলে ২ টাকা হাতে দিয়ে ১টি চকলেট ধরিয়ে দিয়ে বলে ১ টাকা খুচরা নাই। এতে অনেক যাত্রীদের ভিতরে ক্ষোভ দেখা দেয়। অনেক যাত্রী এর প্রতিবাদ করলে মাঝিরা জানান, আমাদের পৌরসভা থেকে এটা নির্ধারণ করে দিয়েছে।
অবশেষে নলছিটি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন এর হস্তক্ষেপে বন্ধ হলো অতিরিক্ত ভাড়া আদায়। শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) বিকেলে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় বন্ধ করেন তিনি।
জানাগেছে, ঝালকাঠি জেলা সদর ও নলছিটি উপজেলার বুক চিড়ে বয়ে গেছে সুগন্ধা নদী। নদীর উত্তর পাড়ে নলছিটি উপজেলার ১০টি ইউনিয়নের মধ্যে ভৈরবপাশা ও মগড় ইউনিয়ন অবস্থিত। অপরদিকে সদর উপজেলার পোনাবালিয়া ইউনিয়ন সুগন্ধা নদীর দক্ষিণে অবস্থিত।
ঝালকাঠি জেলা শহরের সাথে নলছিটি উপজেলাবাসীর যোগাযোগের সহজতম উপায় পুরাতন কলেজ খেয়া। এ খেয়াঘাট থেকে প্রতিদিন কয়েক হাজার লোক যাতায়াত করেন। জনপ্রতি খেয়াভাড়া নেয়া হচ্ছিলো ৭টাকা, যা করোনা দুর্যোগ শুরু হবার পূর্বে দীর্ঘ বছরের ভাড়া ৫টাকা।
স্থানীয় কয়েকজনে জানান, বিগত কয়েকবছর ধরে পুরাতন কলেজ খেয়াঘাটে প্রতিজন খেয়াপারাপারে ৫টাকা করেই নির্ধারণ করে নেয়া হয়। করোনা দুর্যোগ শুরু হবার পরে জেলাব্যাপী অঘোষিত কঠোর লকডাউন চলাকালে খেয়া পারাপারে সীমাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়। এসুযোগে জনপ্রতি সর্বনি¤œ ২০ টাকা থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ যার কাছ থেকে যা নেয়ার সুযোগ হয়েছে তাই নিয়েছে মাঝিরা। এরপর যখন ৬০% ভাড়া বৃদ্ধিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে নৌ এবং স্থল যান চলাচলে শিথিলতা ঘোষণা করা হয়, তখন জনপ্রতি ট্রলারে খেয়া ভাড়া নেয়া হয় ১০টাকা। ১ সেপ্টেম্বর থেকে সরকার পূর্বের ভাড়া নেয়া ঘোষণা দিলেও ৫টাকার স্থলে জনপ্রতি ৭টাকা করে রাখেন ট্রলারের মাঝিরা।
ট্রলার চালক রেজাউল ইসলাম জানান, পৌরসভা থেকে ৭টাকা হারে ভাড়া নেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তাই ৭টাকা করে রাখা হচ্ছে।
এবিষয়ে নলছিটি উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) মোহাম্মদ সাখাওয়াত হোসেন জানান, পৌরসভা থেকে ৫ টাকার পরিবর্তে ৭ টাকা নেওয়ার জন্য নির্দেশ দিয়েছে, এর পরিপ্রেক্ষিতে জেলা প্রশাসক বরাবর একটি আবেদন করেছে। কিন্তু জেলা প্রশাসক এখন পর্যন্ত কোন অনুমতি দেননি। যখন অনুমতি পাবে তখন থেকে ৭ টাকা আদায় করতে পারবে। এখন পূর্বের ভাড়া ৫ টাকা আদায় করতে হবে।
তিনি আরও জানান, বারইকরন খেয়াঘাটে মোটরসাইকেল চালকরা যাত্রীদের টানাটানি করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। যাত্রীদের টানাটানি করে হয়রানি সৃষ্টি না করার জন্য সকল চালকদের সাথে আলোচনা করে এবং চালকদের অঙ্গীকার করানো হয়েছে। এরপরও যদি তারা এভাবে করে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে। অতিরিক্ত ভাড়া বন্ধ করায় যাত্রীরা নির্বাহী অফিসারকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
সর্বস্বত্ত্ব © দৈনিক শতকন্ঠ - ২০২১ কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews