1. admin@dainikshatakantha.com : dainikshatakantha :
সোমবার, ১৭ মে ২০২১, ০২:৩৪ পূর্বাহ্ন

কখন যেন টিনটুন ভেঙে পড়ে, নলছিটির খাওক্ষীর মাদ্রাসায় অর্ধশত বছরেও নেই পাকা ভবন, শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ

  • প্রকাশিত : মঙ্গলবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২১
  • ৮০ বার পড়া হয়েছে
নলছিটির দক্ষিণ খাওক্ষীর মেহেদীয়া দাখিল মাদ্রাসার জরাজীর্ণ ভবন।
নলছিটির দক্ষিণ খাওক্ষীর মেহেদীয়া দাখিল মাদ্রাসার জরাজীর্ণ ভবন।

স্টাফ রিপোর্টার
বরিশাল-খুলনা আঞ্চলিক মহাসড়কের ঝালকাঠির নলছিটি উপজেলার খাওক্ষীর গ্রামে ১৯৭৫ সালে প্রাথমিকভাবে মাদ্রাসা শিক্ষা কার্যক্রম দিয়ে পথচলা শুরু করে দক্ষিণ খাওক্ষীর মেহেদীয়া মাদ্রাসা। স্থানীয়দের প্রয়োজনের তাগিদে এবং ইসলাম শিক্ষাকে আরো প্রসার করতে স্থানীয় বিশিষ্ট ও শিক্ষানুরাগী ব্যক্তিদের সহায়তায় মাদ্রাসার অগ্রগতি হতে শুরু করে। প্রতিষ্ঠাকাল থেকে ফলাফলে সন্তোষজনক অবস্থান থাকলেও সরকারী কোন বরাদ্দ না পাওয়ায় অযত্ন-অবহেলায় রয়েছে অবকাঠামোগত উন্নয়ন কার্যক্রম। জরাজীর্ণ শ্রেণিকক্ষে পাঠদানের উপযোগী কোন পিরবেশ নেই। বৃষ্টি হলেই পানিতে তলিয়ে যায় মাদ্রাসার ফ্লোর, উপর থেকে পানি পড়ে ভিজে যায় কোমলমতি শিক্ষার্থীদের বই-খাতা। স্যাঁত স্যাঁতে পরিবেশে শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্যও থাকে হুমকির মুখে।
মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা আলতাফ হোসেন জানান, দক্ষিণ খাওক্ষীর মেহেদীয়া দাখিল মাদ্রাসাটি ১৯৭৫ সালে নুরানী শিক্ষা কার্যক্রমে চালু হয়। ১৯৯৫ সালের ১ অক্টোবর থেকে দাখিল শ্রেণিতে উত্তীর্ণ করে শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হলে ১ বছর পরে ১৯৯৬ সালের ১ অক্টোবর থেকে দাখিল স্বীকৃতি পায় এবং ১৯৯৬ সালে প্রথম দাখিল পরীক্ষায় শিক্ষার্থীরা অংশ নেয়। ওই বছরই মাদ্রাসাটি সরকারী অনুদানভুক্ত (এমপিও)হয়। বর্তমানে প্রায় ৩শ শিক্ষার্থী রয়েছে প্রতিষ্ঠানটিতে। পাবলিক পরীক্ষায় প্রতি বছর প্রায় শতভাগ উত্তীর্ণ হয়ে ভালো ফলাফল অর্জন করে। প্রতিষ্ঠানটি সুনামের সাথে পরিচালিত হলেও এত উন্নয়ন থাকা সত্বেও অত্র প্রতিষ্ঠানে কোন উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি। সরকারী বরাদ্দে কোন পাকা ভবন না থাকায় জড়াজীর্ণ টিনের ঘরে একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালিত হয়। সামান্য বৃষ্টিপাত হলে পাঠদানের উপযোগী থাকে না।
মাদ্রাসা সুপার মাওলানা শামসুল হক জানান, মাদ্রাসাটি প্রতিষ্ঠার প্রায় অর্ধশত বছর পার হয়ে গেছে। ফলাফলে ঈর্ষণীয় সাফল্য অর্জন করার পরেও কোন উন্নয়নের ছোয়া লাগেনি। ৩শ’রও বেশি শিক্ষার্থী থাকার পরেও মাদ্রাসাটির অবকাঠামোগত উন্নয়ন না থাকায় চরম ঝুঁকি নিয়ে একাডেমিক কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। অবকাঠামোগত উন্নয়নের জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে অনুরোধ জানান তিনি।
মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য মোহাম্মদ আলী খান জানান, দক্ষিণ খাওক্ষীর মেহেদীয়া দাখিল মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকে অনেক চড়াউ উৎড়াই পেরিয়ে এ পর্যন্ত এসেছে। এতে অবকাঠামো উন্নয়নে কোন সরকারী অর্থ বরাদ্দ নেই। জরাজীর্ণ টিনের ঘরে ঝুঁকি নিয়ে শিক্ষার্থীদের বসে শিক্ষাগ্রহণ করছে। একটু বাতাস হলেই ঘরটি ভেঙে পড়ার আতঙ্কে থাকি, কখন যেন টিনটুন ভেঙে পড়ে। 

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
সর্বস্বত্ত্ব © দৈনিক শতকন্ঠ - ২০২১ কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews