1. admin@dainikshatakantha.com : dainikshatakantha :
বুধবার, ২৩ জুন ২০২১, ০৯:০৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষ আপডেট:
ঝালকাঠিতে করেনাভাইরাসে ৩ জনের মৃত্যু টানা ৯ দফায় ইউপি চেয়ারম্যান পৌর মেয়র ও ৩০ ইউপিতে নৌকার জয় এমপি আমু’র সাথে নবনির্বাচিত মেয়রের সাক্ষাত ঝালকাঠিতে জনপ্রতিনিধিতে হেট্রিক করলেন যাঁরা ঝালকাঠি জেলা কল্যাণ সমিতি খুলনার নেতৃবৃন্দের বিবৃতি, ঝালকাঠি পৌর মেয়রসহ নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন শংকরপাশা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভবনটি অতি ঝুঁকিপুর্ণ ম্যাজিস্ট্রেট, বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ, আনসার ভিডিপি সদস্যদের সতর্ক দায়িত্ব পালন ঝালকাঠি পৌরসভা এবং ৩১টি ইউনিয়নে স্বতঃস্ফুর্ত ভোট অনুষ্ঠিত, দুই প্রার্থীর ভোট বর্জন ঝালকাঠি পৌর নির্বাচনে নৌকার জয় ঝালকাঠির ৩১ ইউপিতে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হলেন যাঁরা
শিরোনাম:
ঝালকাঠিতে করেনাভাইরাসে ৩ জনের মৃত্যু টানা ৯ দফায় ইউপি চেয়ারম্যান পৌর মেয়র ও ৩০ ইউপিতে নৌকার জয় এমপি আমু’র সাথে নবনির্বাচিত মেয়রের সাক্ষাত ঝালকাঠিতে জনপ্রতিনিধিতে হেট্রিক করলেন যাঁরা ঝালকাঠি জেলা কল্যাণ সমিতি খুলনার নেতৃবৃন্দের বিবৃতি, ঝালকাঠি পৌর মেয়রসহ নবনির্বাচিত ইউপি চেয়ারম্যান ও সদস্যদের শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন শংকরপাশা মাধ্যমিক বিদ্যালয় ভবনটি অতি ঝুঁকিপুর্ণ ম্যাজিস্ট্রেট, বিজিবি, র‌্যাব, পুলিশ, আনসার ভিডিপি সদস্যদের সতর্ক দায়িত্ব পালন ঝালকাঠি পৌরসভা এবং ৩১টি ইউনিয়নে স্বতঃস্ফুর্ত ভোট অনুষ্ঠিত, দুই প্রার্থীর ভোট বর্জন ঝালকাঠি পৌর নির্বাচনে নৌকার জয় ঝালকাঠির ৩১ ইউপিতে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হলেন যাঁরা

ঝালকাঠির ঈদ মার্কেটে শিশুদের নিয়ে চলছে কেনাকাটা, করোনা নিয়ে ভ্রুক্ষেপ নেই কারোরই

  • প্রকাশিত : সোমবার, ১০ মে, ২০২১
  • ৬২ বার পড়া হয়েছে
ঝালকাঠি ঈদ মার্কেটে শিশুদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা না নিয়েই কেনাকাটায় ক্রেতাগণ
ঝালকাঠি ঈদ মার্কেটে শিশুদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা না নিয়েই কেনাকাটায় ক্রেতাগণ

আতিকুর রহমান

পর্যায়ক্রমে করোনা ভাইরাস সংক্রমণে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বাড়লেও সেদিকে ভ্রæক্ষেপ নেই ঈদের মার্কেটে বিক্রেতা-ক্রেতাদের। শিশুদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় কোন ব্যবস্থা না নিয়ে বিপণি বিতানগুলোতে নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব না মেনেই পোশাকসহ ঈদ সামগ্রী কিনছেন হাজার হাজার ক্রেতা। এসব ঈদ মার্কেটে কোলের শিশুকেও সঙ্গে নিয়ে আসছেন মায়েরা। এতে করোনার সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কার পাশাপাশি ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে শিশুরা।

রোববার (৯মে) সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত জেলা শহরের কুমারপট্টি ও কাপুড়িয়াপট্টি রোডের বিভিন্ন বিপণিবিতানে মানুষের ভিড় দেখা যায়। এসব মানুষের মধ্যে ৩-২৪ মাস বয়সী শিশুকেও কোলে নিয়ে আসতে দেখাগেছে মায়েদের।

মার্কেটগুলোতে ২-১০ বছর বয়সী শিশুদেরও ভিড় রয়েছে। ৮ মাস বয়সী শিশু কোলে নিয়ে তার জন্য পোশাক কিনতে এসেছেন সায়লা বেগম। তিনি বলেন, ঈদের জন্য বাচ্চার কাপড় কিনতে হবে-এজন্যই এসেছি। বাচ্চার বাবা বিদেশে থাকে। এ কারণে আমাকেই আসতে হয়েছে। আর এত ছোট বাচ্চাকে কোথায় রেখে আসবো, তাই সঙ্গে নিয়ে এসেছি।

মাহমুদা খাতুন নামে আরেক গৃহবধূ বলেন, ঈদে বাচ্চাদেরতো পোশাক দিতেই হবে। বাচ্চার শরীরে ম্যাচিং করে পোশাক কেনার জন্য বাচ্চাকে কোলে নিয়ে এসেছি।

ঝালকাঠি ঈদ মার্কেটে শিশুদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা না নিয়েই কেনাকাটায় ক্রেতাগণ

মাহমুদুল, সাহিদা, আব্দুল বাতেনসহ অনেক ক্রেতাদেরকেই বাচ্চা কোলে নিয়ে ঈদের মার্কেটে দেখা যায়। জানতে চাইলে তারা জানান, বছরের একটা মাত্র দিনে সব বাচ্চাই নতুন পোশাকের জন্য অপেক্ষা করে থাকে। তাই করোনার ভয় উপেক্ষা করেই ঈদের পোশাক কিনতে এসেছেন তারা।

হাজী জয়নাল মার্কেটের রফিক বস্ত্রালয়ের স্বত্বাধিকারী রফিকুল ইসলাম বলেন, দোকানে ভিড় জমলে দূরত্ব মেনে চলা আর সম্ভব হয় না। আবার ক্রেতাদের তাড়িয়েও দিতে পারি না। তবে সবাইকে নিরাপদ শারীরিক দূরত্ব বজায় থাকার জন্য সতর্ক করা হয়।

আরেক দোকান মালিক দিলীপ কুমার বলেন, আমরা দোকানে হ্যান্ড স্যানিটাইজারের ব্যবস্থা রেখেছি। ক্রেতাদের সেটা ব্যবহারের জন্য বলা হচ্ছে। আর বাচ্চাদের নিয়ে যদি তারা দোকানে আসেন, আমরা কি করতে পারি।

ব্যবসায়ীরা বলেন, করোনার ভয় আর ভ্রাম্যমাণ আদালতের ভয় নিয়েই আমরা দোকানদারি করছি। আমাদেরও-তো বাঁচতে হবে। এখন ঈদ উপলক্ষে কিছুটা বেচা-কেনা করে পুষিয়ে নেওয়ারও চেষ্টা করছেন ব্যবসায়ীরা।

সচেতন মহল বলেন, ঈদ মার্কেটগুলো জনসমুদ্রে পরিণত হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মানার তোয়াক্কাই করছে না মানুষ। মানুষ সচেতন হচ্ছে না। এতে করে সামনে ভয়ঙ্কর পরিস্থিতি অপেক্ষা করছে।

ঝালকাঠি সদর হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডা. আবু জাফর দেওয়ান জানান, করোনা ভাইরাসে সর্বোচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে শিশু ও বয়স্করা। সেই শিশুদেরই মার্কেটে নিয়ে এসে ঝুঁকিটা বাড়ানো হচ্ছে। এসব শিশুর কোনো উপসর্গ দেখা দিলেও কিছু বলতে পারবে না। ফলে মারাত্মকভাবে ছড়িয়ে পড়বে করোনা ভাইরাস।

ঝালকাঠি জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ঈদ মার্কেটে ক্রেতা জনসাধারনের উপচেপড়া চাপের কারণে নিরাপদ স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করা সম্ভব না হলেও মাস্ক পরিধানে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান কঠোরভাবেই চলছে। প্রতিদিন একাধিক ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান অব্যাহত থাকছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
সর্বস্বত্ত্ব © দৈনিক শতকন্ঠ - ২০২১ কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews