কাঁঠালিয়ায় জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে উপজেলার অধিকাংশ এলাকা

0
233
তলিয়ে গেছে বাড়ি-ঘরের আঙিনা
ঝালকাঠি: কাঁঠালিয়ায় জোয়ারের পানিতে তলিয়ে গেছে বাড়ি-ঘরের আঙিনা।

ফারুক হোসেন খান
উপকূলীয় জেলা ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ায় বিষখালী নদীতে বেড়িবাঁধ না থাকায় বঙ্গোপসাগরে লঘুচাপের প্রভাব ও পুর্ণিমার অস্বাভাবিক জোয়ারে স্বাভাবিকের চেয়ে ৪/৫ ফুট পানি বৃদ্ধি ও বিরামহীন তিনদিনের টানা বৃষ্টির কারণে উপজেলা অধিকাংশ নিম্নাঞ্চলের বাড়ী ঘর রাস্তাঘাট শত শত একর ফসলী জমি, মাছের ঘের, পুকুর জলাশয় তলিয়ে গেছে। বাড়ী ঘর পানিতে প্লাবিত হওয়ায় হাজার হাজার মানুষ পানি বন্দী হয়ে পড়েছে। কালভার্টের মুখ বন্ধ করে দেওয়ায় পানির চাপে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স (আমুয়া) একমাত্র সড়কটি ভেঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। বিষখালী নদীর তীরবর্তী কাঁঠালিয়া, বড় কাঁঠালিয়া, জয়খালী, চিংড়াখালী, মশাবুনিয়া, হেতালবুনিয়া, আমুয়া, কচুয়া, শৌলজালিয়া, রঘুয়ারচর, তালগাছিয়া, আওরাবুনিয়া, জাঙ্গালিয়া, এছাড়া হলতা ও বাখের খালের পাড়ের পাটিখালঘাটা, মরিচবুনিয়া, তারাবুনিয়া ভায়েলাবুনিয়া, বানাই ও পশ্চিম চেঁচরী গ্রাম স্বাভাবিকের চেয়ে ৪-৫ ফুট পানিতে প্লাবিত হয়েছে। উপজেলা যুব উন্নয়ণ, মৎস্য অফিস, সমবায়, আনসার ভিডিপি, পল্লী সঞ্চয় ব্যাংক, বিআরডিবি ও ডরমিটরির মধ্যে পানি ঢুকেছে। এছাড়া উপজেলা পরিষদ ভবনের চর্তুদিকের সড়ক ও সদর ইউনিয়ন পরিষদ এবং সাব-রেজিস্ট্রি অফিসের সামনের সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে।
উপজেলা সদরের মনিরুজ্জামান খান জানান, তার ঘেরের মাছ পানিতে ভেসে গেছে। জয়খালী গ্রামের এমরান খান জানান, পাকের ঘরে পানি ঢুকে যাওয়ায় তারসহ এ গ্রামের বহু ঘরে দুপুরের রান্না হয়নি।
উপজেলা কৃষি অফিসার কৃষিবীদ মো. শহীদুল ইসলাম জানান, পানিতে শত শত একর ফসলী জমি তলিয়ে গেছে। পানি স্থায়ী হলে আমন বীজতলা ও আমনের ক্ষতি হতে পারে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here