1. admin@dainikshatakantha.com : dainikshatakantha :
মঙ্গলবার, ০৩ অগাস্ট ২০২১, ০৯:৫৭ পূর্বাহ্ন

দরপত্র গুছ প্রক্রিয়ায় অসন্তোষ, নলছিটিতে এডিপির ৫৪ লাখ টাকা ফেরত

  • প্রকাশিত : শনিবার, ৩ জুলাই, ২০২১
  • ৪৮ বার পড়া হয়েছে
দরপত্র গুছ প্রক্রিয়ায় অসন্তোষ, নলছিটিতে এডিপির ৫৪ লাখ টাকা ফেরত
দরপত্র গুছ প্রক্রিয়ায় অসন্তোষ, নলছিটিতে এডিপির ৫৪ লাখ টাকা ফেরত

কে এম সবুজ

ঝালকাঠির নলছিটিতে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) প্রায় ৫৪ লাখ টাকা ফেরত গেছে। অভিযোগ রয়েছে, গুছ প্রক্রিয়ায় কাজ ভাগ করা হয়েছিল, এতে অসন্তোষ দেখা দিলে দরপত্র বাতিল করে উপজেলা পরিষদ। গত ৩০ জুনের মধ্যে নতুন করে দরপত্র আহŸান করতে না পারায় এ টাকা সংশ্লিষ্ট দপ্তরে ফেরত চলে যায়। ফলে উপজেলার ১০টি ইউনিয়নে কাঁচা রাস্তায় ইট বিছানো (সেলিং) ও কালভার্ট নির্মাণের কাজ বন্ধ হয়ে যায়। এতে ক্ষুব্ধ হয়েছেন ঠিকাদাররা, উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত হয়েছে এলাকাবাসী। তবে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বলছেন, দরপত্র প্রক্রিয়ায় ত্রæটি থাকায় তা বাতিল করা হয়েছে।

জানা গেছে, ২০২০-২০২১ অর্থ বছরের জন্য ৫৩ লাখ ৯৯ হাজার টাকায় ১৪টি গ্রæপে বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (এডিপি) দরপত্র আহŸান করে স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর। গত ২৪ মে নলছিটি উপজেলা প্রকৌশলী মীর মো. আকতারুজ্জামান এ দরপত্র আহŸান করে পত্রিকায় বিজ্ঞপ্তি দেন। ৬ জুন অফিস খোলা পর্যন্ত দরপত্র বিক্রি ও ৭ জুন পরদপত্র গ্রহণের সময় নির্ধারণ করা হয়। ওই দিন বিকেলে দরদাতাদের উপস্থিতে বাক্স খোলা হয়। উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মফিজুল ইসলাম শাহিনের নেতৃত্বে স্থানীয় ছাত্রলীগ ও যুবলীগের নেতাকর্মীরা দরদাতাদের সমন্বয়ে গুছ প্রক্রিয়ায় ১৪টি লাইসেন্সে কাজ ভাগ করেন। বিষয়টি নিয়ে উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও উপজেলা পরিষদের এ সংক্রান্ত গঠিত কমিটির সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান অসন্তুষ্ঠ হন। এমনকি স্থানীয় সংসদ সদস্য আমির হোসেন আমুর কাছেও এ প্রক্রিয়াটি নিয়ে অসন্তোষ দেখা দেয়। নিয়মানুযায়ী ৩০ জুনের মধ্যে এডিপির দরপত্রের কাজ সম্পন্ন করতে হবে। কিন্তু কার্যাদেশ না পাওয়ায় ঠিকাদাররা কেউই কাজ করতে পারেননি। ফলে ফেরত যায় প্রায় ৫৪ লাখ টাকা।

কয়েকজন ঠিকাদার নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেন, উপজেলা পরিষদের সমন্বহীনতার কারণে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে কার্যাদেশ দেওয়া হয়নি বিধায় কাজও সম্পন্ন হয়নি। উল্টো কোন কারণ ছাড়াই গত ১৩ জুন উপজেলা পরিষদের সভায় দরপত্র বাতিল করা হয়েছে। ১৪ গ্রæপের কাজের সিডিউল কেনার জন্য ঠিকাদারদের গুনতে হয়েছে টাকা। দরপত্র করার পরে ৩০ জুনের মধ্যে পুনরায় দরপত্র আহŸান না করায় প্রায় ৫৪ লাখ টাকা ফেরত চলে গেছে। এতে ক্ষতি হয়েছে উন্নয়ন কাজের। এজন্য উপজেলা পরিষদকে দুষছেন ঠিকাদাররা।

উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মফিজুল ইসলাম শাহিন বলেন, দরপত্র আহŸান করার পরে সবকিছুই সঠিক প্রক্রিয়ায় করা হয়েছে। কাজ করার জন্য যে সময় ছিল, তাতে এতো দিনে কাজ হয়ে যেতো। কিন্তু কি কারণে দরপত্র বাতিল করা হয়েছে, তা আমার জানা নেই। বিষয়টি কমিটির সভাপতি ও প্রকৌশলী জানেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা প্রকৌশলী মীর মো. আকতারুজ্জামান বলেন, কমিটির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দরপত্র বাতিল করা হয়েছে। আমার হাতে সভার সিদ্ধান্তের কাগজ নেই। তাই বিস্তারিত বলতে পারবো না।

নলছিটি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুম্পা সিকদার বলেন, দরপত্র আহŸানের পর পর্যাপ্ত সময় ছিল না কাজ সম্পন্ন করার মতো। এর মধ্যে করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় পাবলিক প্রকিউরমেন্ট রেগুলেশন অ্যাক্ট অনুযায়ী দরপত্র বাতিল করা হয়েছে। ১৩ জুনের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়। পরবর্তী সময়ের মধ্যে দরপত্র আহŸান করে কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব ছিল না।

নলছিটি উপজেলা হিসারক্ষণ কর্মকর্তা উত্তম কুমার মন্ডল বলেন, নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে টাকা তুলে কাজ সম্পন্ন না করায় অর্থ ফেরত গেছে। এ অর্থ আর কখনো ব্যবহার করা যাবে না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও এ সংক্রান্ত কমিটির সভাপতি মো. সিদ্দিকুর রহমান বলেন, দরপত্র প্রক্রিয়ায় ত্রæটি থাকায় তা বাতিল করা হয়েছে। চলতি অর্থ বছরে নতুন বরাদ্দ আসলে এসব কাজ করা হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
সর্বস্বত্ত্ব © দৈনিক শতকন্ঠ - ২০২১ কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews