পাকাঘর থাকার পরেও আবাসন নির্মাণের আবেদন গেজেট বাতিল হওয়া সুলতান দুয়ারীর

0
67
সামনে টিনের ঘর, পেছনে বিল্ডিং করেও অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন নিমার্ণের আবেদন করে গেজেট বাতিল হওয়া সুলতান আহম্মেদ দুয়ারী।
সামনে টিনের ঘর, পেছনে বিল্ডিং করেও অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন নিমার্ণের আবেদন করে গেজেট বাতিল হওয়া সুলতান আহম্মেদ দুয়ারী।

কে এম সবুজ
প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধার ওসমানী সনদ কেড়ে নিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রতিষ্ঠাকারী ঝালকাঠির সুলতান দুয়ারীর গেজেট ও ভাতা বাতিল হওয়ায় নতুন করে ষড়যন্ত্র শুরু করেছে। প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা সুলতান হোসেন মাঝির স্ত্রী ও সন্তানদের মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছেন সুলতান দুয়ারী। এমনকি অসচ্ছল বীর মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য আবাসন নির্মাণের আবেদন ফরম পূরণেও প্রতারণার আশ্রয় নিয়েছেন তিনি। সদর উপজেলার নেহালপুর গ্রামে তার পাকাঘর (বিল্ডিং) থাকা সত্তে্বও আবেদনে পুরনো কাঠের ঘর দেখিয়েছেন তিনি। তার স্ত্রী একটি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক এবং ছেলে একটি ব্যাংকে চাকরি করছে। তবুও তিনি নিজেকে অসচ্ছল দাবি করে ঘর পাওয়ার আবেদন করেছেন।
স্থানীয়দের অভিযোগ, মুক্তিযুদ্ধ না করেই মুক্তিযোদ্ধা হয়ে যাওয়া সুলতান দুয়ারী পুরনো কাঠের ঘরের পাশেই একটি নতুন পাকা বিল্ডিং নির্মাণ করেছেন। নতুন পাকা বিল্ডিং পাওয়ার আশায় এমনটাই করে রেখেছেন তিনি। এ ব্যাপারে তদন্ত করে সত্যতা পাওয়া গেলে প্রতারণার জন্য তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে বলে জানিয়েছেন ঝালকাঠি সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবেকুন নাহার।
এদিকে প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা পিপলিতা গ্রামের মৃত সুলতান হোসেন মাঝির স্ত্রী ফরিদা বেগম তার স্বামীর নাম গেজেটভুক্ত করার দাবি জানিয়ে জেলা প্রশাসকের কাছে আবেদন করেছেন। গত বুধবার তিনি জেলা প্রশাসকের কাছে এ আবেদন জমা দেন।
ফরিদা বেগম অভিযোগ করেন, নেহালপুর গ্রামের সুলতান আহম্মেদ দুয়ারী তার স্বামী পিপলিতা গ্রামের সুলতান হোসেন মাঝির ওসমানি সনদ নিয়ে আর ফেরত দেননি। ওই সনদ দিয়ে প্রতারণার মাধ্যমে নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন। নিজের নাম ও বাবার নাম সংশোধন করতে পারলেও গ্রামের নাম সংশোধন করতে পারেননি। এখন তিনি পিপলিতা গ্রামের ঠিকানা ব্যবহার করেন। অথচ ওই ঠিকানা প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধা সুলতান হোসেন মাঝির। প্রতারক সুলতান দুয়ারীর গেজেট ও ভাতা বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়। তার সকল আর্থিক সুবিধা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এর পরেও তিনি নানাভাবে ষড়যন্ত্র করে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে তাদের হয়রানি করছে। প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধার পক্ষে যারা সহযোগিতা করছেন, তাদের নামেও মিথ্যা প্রচারণা চালিয়ে সম্মানহানির চেষ্টা করছেন সুলতান দুয়ারী। তার বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণের দাবি জানান প্রকৃত বীর মুক্তিযোদ্ধার স্ত্রী ফরিদা বেগম।
ফরিদা বেগম বলেন, আমি তিন ছেলে ও এক মেয়ে নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছি। আমার স্বামীর মৃত্যুর পরে অনাহারে-অর্ধাহারে দিন কাটাচ্ছি। তাই আমার স্বামীর নাম মুক্তিযোদ্ধা তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করার দাবি জানাচ্ছি।
জানা যায়, ঝালকাঠি সদর উপজেলার নেহালপুর গ্রামের মৃত সৈয়দ আলী দুয়ারীর ছেলে মো. সুলতান আহম্মেদ দুয়ারী মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ না করেও দীর্ঘদিন ধরে মুক্তিযোদ্ধার ভাতাসহ যাবতীয় রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা ভোগ করেছেন। পার্শ্ববর্তী পিপলিতা গ্রামের মৃত. সৈয়জদ্দিনের ছেলে মুক্তিযোদ্ধা সুলতান হোসেন মাঝির সঙ্গে নাম মিল থাকায় জালিয়াতি করে সনদ নেন সুলতান আহম্মেদ দুয়ারী।
অভিযোগ রয়েছে, সুলতান হোসেন মাঝির কাছ থেকে মুক্তিযোদ্ধার সনদ নিয়ে ভাতা পাইয়ে দেওয়ার কথা বলে সুলতান আহমেদ দুয়ারী নিজের নামে মুক্তিযোদ্ধার ভাতা করিয়ে নেন। মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করে রাষ্ট্রীয় সকল সুযোগ সুবিধা ভোগ করেছেন তিনি। সন্তানদের মুক্তিযোদ্ধা কোঠায় দিয়েছেন চাকরিও। তার স্ত্রী নেহালপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক হিসেবে চাকরি করছেন। অবশেষে মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয় তার গেজেট ও সনদ বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি করে। প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা সুলতান হোসেন মাঝি ২০১৯ সালে মৃত্যুবরণ করেন। তাঁর স্ত্রী ফরিদা বেগম, ছেলে মিজানুর রহমান, মিরাজ মাঝি, নুবীন মাঝি ও মেয়ে নুপুর বেগম। জীবিত অবস্থায় প্রতারক সুলতান আহম্মেদ দুয়ারীর সঙ্গে শক্তি ও বুদ্ধিতে পারেননি প্রকৃত মুক্তিযোদ্ধা। নিজের মুক্তিযোদ্ধার স্বীকৃতি দেখে যেতে পারেননি তিনি। পরিবারের দাবি, তাঁর নামে গেজেট করে স্ত্রীর নামে ভাতার ব্যবস্থা করা হোক।
জানা যায়, সুলতান হোসেন দুয়ারীর মুক্তিযোদ্ধার গেজেট ও সনদ বাতিল হওয়ায় আর্থিকসহ সকল প্রকার সুযোগ-সুবিধা বন্ধ করার জন্য সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে নোটিশ দেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের গেজেট অধিশাখার উপসচিব রথীন্দ্রনাথ দত্ত। জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিলের (জামুকা) ৪৮তম সভার সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সৈয়দ আলী দুয়ারীর ছেলে সুলতান হোসেন দুয়ারীর মুক্তিযোদ্ধার গেজেট ও সনদ বাতিল করা হয়। উপসচিব রথীন্দ্রনাথ দত্ত গত ২২ নভেম্বরে স্বাক্ষরিত চিঠিটি ১ ডিসেম্বর ঝালকাঠিতে পৌঁছলে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাবেকুন নাহার উপজেলা সমাজসেবা কর্মকর্তাকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন।
সুলতান আহম্মেদ দুয়ারীর আপন চাচা বয়জ্যেষ্ঠ ব্যক্তি আকরাম আলী দুয়ারী (৯১) বলেন, মুক্তিযুদ্ধের সময় আমরা বাড়িতেই ছিলাম। সুলতান আহম্মেদ আমার বড় ভাইয়ের ছেলে। তখন ওর বয়স ১৭-১৮ হবে। সে কখনো মুক্তিযুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেননি। পিপলিতার সুলতান হোসেন মাঝির সার্টিফিকেট নিয়ে কেমন কেমন করে যেন নিজেকে মুক্তিযোদ্ধা বানিয়েছে। সুলতান মাঝী অশিক্ষিত হওয়ায় সুলতান আহম্মেদ দুয়ারীর সাথে আর পারে নাই।
সুলতান আহম্মেদ দুয়ারীর বাল্যবন্ধু আবদুল হক তালুকদার বলেন, সুলতান আহম্মেদ দুয়ারী আমার চেয়ে এক থেকে দেড় বছরের বড়। ছোটবেলা থেকেই আমরা একত্রে খেলাধুলা করতাম এবং স্কুলে যেতাম। দেশ স্বাধীনের সময়ও আমরা একত্রেই ছিলাম। ও কোন যুদ্ধে যায়নি। কয়েকবছর পূর্বে শুনি সুলতান দুয়ারী মুক্তিযোদ্ধা।
এ ছাড়াও নেহালপুরের প্রবীণ ব্যক্তি হাবিবুর রহমান তালুকদার, সুলতান দুয়ারীর চাচাতো ভাই আলতাফ হোসেন, মো. আমির হোসেনসহ এলাকাবাসী জানান, সুলতান দুয়ারী কখনোই কোন যুদ্ধে অংশ গ্রহণ করেনি। সে পিপলিতা গ্রামের সুলতান হোসেন মাঝির সার্টিফিকেট ব্যবহার করে বাবার নাম ভুল হয়েছে বলে পরিবর্তন করে এখন নতুনে মুক্তিযোদ্ধা হয়েছে। তিনি জালজালিয়াতি অনেক দক্ষ। এলাকার বিভিন্ন নিরীহ জনের জমি জাল স্বাক্ষর করে দলিল তৈরি করে দখল করে। এর প্রতিবাদ করলে বিভিন্ন ধরনের ষড়যন্ত্রমূলক মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here