1. admin@dainikshatakantha.com : dainikshatakantha :
সোমবার, ১০ মে ২০২১, ০২:২৮ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ আপডেট:
চীনা রকেটের ধ্বংসাবশেষ ভারত মহাসাগরে পড়েছে টানা নবম খেতাব জার্মান লিগ চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ দেড়শতাধিক বছর পূর্বে প্রতিষ্ঠিত, রাজাপুরের কারামাতিয়া মসজিদে জুমায় মুসল্লিদের সংকুলান হয় না শেখেরহাটের গুরুত্বপূর্ণ সড়কের বেহালদশা রাজাপুরে আদালতের নির্দেশে ১৮ মাস পর হত্যার মামলা রেকর্ড কাঁঠালিয়ায় মাহিন্দ্রার ধাক্কায় কিশোরের মৃত্যু কাঁঠালিয়া ও রাজাপুরে দুই হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দিলেন কেন্দ্রীয় আ. লীগ নেতা মনির ঝালকাঠিতে সুবিধা বঞ্চিত রোজাদারদের মাঝে দুরন্ত ফাউন্ডেশন’র ভিন্নধর্মী ইফতার ঝালকাঠিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান সমালোচনার মুখে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন, ভারত থেকে নাগরিকদের ফেরাতে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া
শিরোনাম:
চীনা রকেটের ধ্বংসাবশেষ ভারত মহাসাগরে পড়েছে টানা নবম খেতাব জার্মান লিগ চ্যাম্পিয়ন বায়ার্ন মিউনিখ দেড়শতাধিক বছর পূর্বে প্রতিষ্ঠিত, রাজাপুরের কারামাতিয়া মসজিদে জুমায় মুসল্লিদের সংকুলান হয় না শেখেরহাটের গুরুত্বপূর্ণ সড়কের বেহালদশা রাজাপুরে আদালতের নির্দেশে ১৮ মাস পর হত্যার মামলা রেকর্ড কাঁঠালিয়ায় মাহিন্দ্রার ধাক্কায় কিশোরের মৃত্যু কাঁঠালিয়া ও রাজাপুরে দুই হাজার পরিবারকে খাদ্যসামগ্রী দিলেন কেন্দ্রীয় আ. লীগ নেতা মনির ঝালকাঠিতে সুবিধা বঞ্চিত রোজাদারদের মাঝে দুরন্ত ফাউন্ডেশন’র ভিন্নধর্মী ইফতার ঝালকাঠিতে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযান সমালোচনার মুখে সিদ্ধান্ত পরিবর্তন, ভারত থেকে নাগরিকদের ফেরাতে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিচ্ছে অস্ট্রেলিয়া

ঝালকাঠির পাটিকররা দুই কোটি টাকা লোকসানে, এনজিও ঋণ নিয়ে বিপাকে

  • প্রকাশিত : রবিবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০২০
  • ৭০ বার পড়া হয়েছে
ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার হাইলাকাঠি গ্রামে একটি পরিবার পাটি বুননের বেতি তৈরী করছেন।
ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার হাইলাকাঠি গ্রামে একটি পরিবার পাটি বুননের বেতি তৈরী করছেন।

মো. আতিকুর রহমান
ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার হাইলাকাঠি গ্রামে পাটি গাছের বাগান এবং ওখানের শীতল পাটি বুননের ফলে গ্রামটি পাটি গ্রাম হিসেবেই পরিচিত। ৭৫টি পরিবার রয়েছে যারা পাটি তৈরী এবং বিক্রি করেই জীবিকা নির্বাহ করেন। এছাড়াও জেলায় মোট ১১টি গ্রামের ২শতাধিক লোক এ বৃত্তিতে জড়িত হয়ে জীবন অতিবাহিত করছেন। প্রতিবছর পাটি তৈরীর কাচামাল প্রস্তুত ও বুননের মৌসুমে এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে জীবিকা নির্বাহ করেন পাটিকররা। চৈত্র-বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ (মার্চ-এপ্রিল ও মে) মাসে পাটি বিক্রির মূল মৌসুম। ওই সময়েই তৈরী করা কয়েক হাজার পাটি করোনা মহামারির কারণে অবিক্রিত অবস্থায় রয়েছে। এখন সেই ১ হাজার টাকা দামের শীতলপাটি বিক্রি করতে ৪শ থেকে ৫শ টাকায়। এনজিও থেকে নেয়া ঋণের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় ঋণ উত্তোলনকারীদের বিভিন্ন ধরনের অশালীন কথাও শুনতে হচ্ছে। সবমিলিয়ে দেড় কোটি টাকা লোকসানে রয়েছে শীতলপাটি তৈরীর কারিগর পাটিকররা। অপরদিকে প্লাস্টিকের তৈরী পাটিতে সয়লাব সর্বত্র। তাই এখন অনেকেই বৃত্তি পরিবর্তন করে অন্য পেশায় চলে যাচ্ছে বলে জানান পাটিকররা।
বাবুল পাটিকর জানান, শীত মৌসুমে বাগান থেকে পাটি গাছ কেটে শীতল পাটি বুননের জন্য বেতি তৈরী (কাঁচামাল প্রস্তুত) করা হয়। এসময়ে আমরা বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নেই। তা দিয়ে সংসার পরিচালনা করি। গতবছর ঋণ নিয়ে ১২০পিস শীতল পাটি বুনেছিলাম। কিন্তু করোনা মহামারির কারণে কোথাও কোন মেলা, মাহফিল বা অনুষ্ঠান না থাকায় বুনানো পাটি ঘরেই রয়েছে। প্রত্যেকটি পাটি কম হলেও ১হাজারের বেশি টাকা দামে বিক্রি হতো। ১২০পিস পাটি বিক্রি করতে পারলে কমপক্ষে ১লাখ ২০ হাজার টাকা উপার্জন করা যেতো। সেই পাটি এখন আদামে (অনেক কম দামে) বিক্রি করতে হচ্ছে। ঋণের টাকা পরিশোধ করতে না পারায় ঋণ উত্তোলনকারীদের অনেক গালমন্দ শুনতে হচ্ছে।
নির্মল পাটিকর জানান, প্রতিবছর যে পাটি ১২শ টাকায় বিক্রি করি, গত মৌসুমে বুনানো সেই পাটি এখন ৪শ থেকে ৫শ টাকায় বিক্রি করতে হচ্ছে। উপায় না পেয়ে নদীতে মাছ ধরে সেই মাছ বিক্রি করে এখন কোনমতে সংসার চালাচ্ছি।
পাটিকর সমিতির সাবেক সভাপতি বলাই পাটিকর জানান, চট্টগ্রামে জব্বারের বলিখেলা অনুষ্ঠানের মেলায়, চরমোনাই-ছারছিনা মাহফিলে এবং বিভিন্ন মেলা-অনুষ্ঠানে আমাদের এলাকার ৪টি গ্রামসহ জেলার ১১টি গ্রাম থেকে ১৫হাজারেরও বেশি পাটি বিক্রি হতো। করোনার কারণে আমাদের বুনানো পাটি ঘরেই আছে, কোথাও বিক্রি করতে পারি নাই। ২শতাধিক পরিবারের প্রত্যেকটি পরিবারে লক্ষাধিক টাকা ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বেসরকারী সংস্থা (এনজিও) থেকে ঋণ নিয়ে এখন আছি মহাবিপাকে। একদিকে বিক্রি করতে না পারায় লোকসান, অপরদিকে ঋণ পরিশোধের চাপ এবং অন্যদিকে সংসার পরিচালনা করে স্বাভাবিক জীবনযাপনে অনেক কষ্ট হচ্ছে।
তিনি আরো জানান, প্লাস্টিকের তৈরী পাটি স্বল্পদামে গ্রামাঞ্চলে বিক্রির ফলে আমাদের পাটি গাছের বেতির তৈরী শীতলপাটি বিক্রি লাভ জনক না হওয়ায় অনেক পাটিকর তৈরীর কাজ থেকে সরে গেছেন। কেউ এখন অটো চালাচ্ছেন, আবার কেউ রিক্সায়, কেউ ফেরিওয়ালা, দোকানী, কেউ মৎস্যজীবির কাজ করে জীবন জীবিকা চালাচ্ছেন। আমাদেরও এক সময় এ পেশা ছেড়ে দিয়ে অন্যপেশায় যেতে হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।
পাটিকর সমিতির সভাপতি তাপস পাটিকর জানান, ঝালকাঠির শীতলপাটি দেশে-বিদেশে সমাদৃত হওয়ায় ঝালকাঠিতে উর্ধ্বতন কোন অতিথি এলে তাকে শীতলপাটি উপহার দেয়। প্রতিবছর শীত মৌসুমে কাচামাল প্রস্তুত করে শীতল পাটি বুনিয়ে চৈত্র-বৈশাখ ও জ্যৈষ্ঠ মাসে বিভিন্ন মেলা, মাহফিল ও অনুষ্ঠানে বিক্রি করে লক্ষাধিক টাকা উপার্জন করে প্রতিটি পরিবার। বুননের সময়ে বেসরকারী সংস্থা (এনজিও) থেকে ঋণ নিয়ে সংসার পরিচালনা করে পাটিকররা। যথাসময়ে বিক্রি করে এনজিওর ঋণ পরিশোধ শেষে সংসারের খরচাদি বাদে কিছু টাকা জমাও থাকে। কিন্তু গতবছর শীত মৌসুমে বুনানো শীতল পাটি কোথাও বিক্রি করতে না পারায় এখনও ঘরে রয়েছে। প্রতিটি পরিবার লক্ষাধিক টাকা লোকসানে পড়ে এনজিও ঋণ পরিশোধে ব্যর্থ হয়ে কিস্তি দিতে না পারায় গালমন্দ শুনতে হচ্ছে বলেও অসহায়ত্ব প্রকাশ করেন তিনি।
পাটি শিল্পীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এ অঞ্চলে অতিথিদের সামনে একটি ভালমানের শীতলপাটি বিছিয়ে নিজেদের আভিজাত্যকে ফুটিয়ে তোলা হয়। পাটি শিল্প তাই বাংলাদেশের লোকাচারে জীবনঘনিষ্ঠ ও ঐতিহ্যবাহী লৌকিক উপাদান। গরমের মৌসুমে এসব পাটি তাপে খুব বেশি গরম হয় না বলেই এটিকে শীতলপাটি বলা হয়। পাইত্রা বা মোর্তা নামে এক ধরণের বর্ষজীবী উদ্ভিদের কান্ড থেকে বেতি তৈরি করা হয়। পরিপক্ক পাটি গাছ কেটে পানিতে ভিজিয়ে তার পর পাটির বেতি তোলা হয়। এর পর ভাতের মাড় ও পানি মিশিয়ে বেতি জ্বাল দেয়া হয়। এর ফলে বেতি হয়ে ওঠে মসৃণ ও সাদাটে। বেতির উপরের খোলস থেকে শীতলপাটি পরের অংশ তুলে বুকার পাটি এবং অবশিষ্ট অংশ ছোটার (চিকন দড়ি) কাজে ব্যবহার করা হয়। বর্তমানে জেলার রাজাপুর উপজেলার হাইলাকাঠি ও ডহরশংকর গ্রামে রয়েছে দুইশতাধিক পরিবার। এরা সবাই পাটি বুনে জীবিকা নির্বাহ করেন। পুরাতন ঐতিহ্যের কারু হাতে গড়া শীতল পাটির জন্য এ গ্রামদুটিকে ‘শীতল পাটির’ গ্রামও বলা হয়। এ গ্রামের শত শত হেক্টর জমি জুড়ে রয়েছে বিশাল নজরকাড়া পাটিগাছের বাগান। এখানে শীতলপাটি, নামাযের পাটি ও আসন পাটি নামে তিন ধরনের পাটি তৈরি করা হয়। পাটির বুনন পদ্ধতি প্রধানত দুই ধরণের। প্রথমত, পাটির জমিনে ‘জো’ তুলে তাতে রঙিন বেতি দিয়ে নকশা তুলে। দ্বিতীয়ত, পাটির জমিন তৈরি হলে তার চর্তুদিকে অন্য রঙের বেতি দিয়ে মুড়ে দিয়ে। পারিবারিক ও উত্তারাধিকার সূত্রে পাটিকরদের পেশা এগিয়ে চলছে। শৈল্পিক উপস্থাপনায় এবং নির্মাণ কুশলতার কারণে দক্ষ ও সুনিপুন একজন পাটিয়াল নারীর কদরও রয়েছে সর্বত্র। একটি পাটি বুনতে ৩/৪ জনের দুই তিনদিন সময় লাগে। যা বিক্রি করে পাঁচশ থেকে দেড় হাজার টাকা আসে। মহাজনরা প্রতি পাটিতে একশ থেকে পাঁচশ টাকা লাভ করেন। পাইত্রা চাষ ও কেনার জন্য প্রচুর মূলধন প্রয়োজন হয়। এ জন্য শিল্পীরা মহাজন ও এনজিওদের কাছে হাত পাততে বাধ্য হয়। এ শিল্পের সাথে জড়িতদের জীবন যাত্রার মানের উন্নতি হচ্ছে না। শীতলপাটি শিল্পীর জন্য ব্যাংক ঋণের ব্যবস্থা না থাকায় পূঁজির জন্য শিল্পীরা দাদন ব্যবসায়ী, সুদখোর মহাজনদের কাছে জিম্মি হয়ে থাকেন। তা ছাড়া বিদেশে ব্যাপক চাহিদা থাকা সত্তে¡ও এখন পর্যন্ত শীতলপাটি রপ্তানিযোগ্য পণ্যের স্বীকৃতি পায়নি। মঞ্জুরানী পাটিকর বলেন, আমাদের অন্যকোন উপার্জন নেই। শুধুমাত্র শীতলপাটি বিক্রি করেই সংসারের খরচ এবং ছেলে-মেয়ের লেখা পড়া চালাই। তবে শীত মৌসুমে এবং বর্ষার সময় আর্থিক সংকটে ভুগতে হয়। তখন এনজিও থেকে চড়া সুদে ঋণ নিতে হয়। সরকার যদি বিনা সুদে ঋণ প্রদান করতো, তা হলে বেশি পরিমানে পাইত্রা ক্রয় করে শীতলপাটি তৈরি করা সম্ভব হতো। ৪র্থ শ্রেণির ছাত্রী অন্তরা ও ৩য় শ্রেণির ছাত্রী শর্মিলা (পাটিকর) জানায়, আমাদের পরিবারের সকলেই পাটি বুনতে পারে। বাবা-মাকে সহযোগিতা করার জন্য পড়া- লেখার পাশাপাশি পাটি তৈরি করি। এতে বাবা মাও আমার প্রতি খুশি।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
সর্বস্বত্ত্ব © দৈনিক শতকন্ঠ - ২০২১ কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews