1. admin@dainikshatakantha.com : dainikshatakantha :
রবিবার, ১৬ মে ২০২১, ০৪:০০ অপরাহ্ন

সৌন্দর্যের অপর লীলাভূমি কাঁঠালিয়ার ছৈলারচরকে পুর্ণাঙ্গ পর্যটন কেন্দ্রের দাবী

  • প্রকাশিত : সোমবার, ৩০ নভেম্বর, ২০২০
  • ১৩৭ বার পড়া হয়েছে
ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ার বিষখালী নদীর তীরে প্রকৃতির অপরুপ লীলাভুমি ছৈলারচরকে পুর্ণাঙ্গ পর্যটন কেন্দ্রের দাবীতে মানববন্ধন।
ঝালকাঠির কাঁঠালিয়ার বিষখালী নদীর তীরে প্রকৃতির অপরুপ লীলাভুমি ছৈলারচরকে পুর্ণাঙ্গ পর্যটন কেন্দ্রের দাবীতে মানববন্ধন।

ফারুক হোসেন খান
উপকূলীয় জেলা ঝালকাঠির দক্ষিণ জনপদ কাঁঠালিয়ার বিষখালী নদীর তীরে প্রকৃতির অপরুপ লীলাভুমি ছৈলারচরকে পুর্ণাঙ্গ পর্যটন কেন্দ্রের দাবীতে মানববন্ধন ও আলোচনা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গত শনিবার সমকাল সুহৃদ সমাবেশ দি-হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশ, সুজন-সুশাসনের জন্য নাগরিক ও পিস ফ্যাসিলেটর গ্রুপ পিএফজি’র যৌথ আয়োজনে ছৈলারচরে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন শেষে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন সমকাল সুহৃদ সমাবেশ ও উপজেলা সুজন সভাপতি অধ্যাপক মো. আবদুল হালিম, সমকাল প্রতিনিধি, প্রেস ক্লাবের সিনিয়র সহসভাপতি ও দি-হাঙ্গার প্রজেক্ট বাংলাদেশ পিস এ্যাম্বেসেডর নেট ওয়ার্ক গ্রুপের বরিশাল অঞ্চলের কো-অর্ডিনেটর ফারুক হোসেন খান, উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান মো. জালালুর রহমান আকন, জেলা পরিষদ সদস্য এ্যাম্বেসেডর শাখাওয়াত হোসেন অপু, জেলা পরিষদ সদস্য ও প্রধান শিক্ষক এসএম আমিরুল ইসলাম লিটন, মিরুখালী স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. আলমগীর হোসেন খান, মঠবাড়ীয়া প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ও কালেকন্ঠ’র আঞ্চলিক প্রতিনিধি দেবদাস মজুমদার, বেতাগী প্রেস ক্লাবের সভাপতি ও সাপ্তাহিক বিষখালী পত্রিকার সম্পাদক সালাম সিদ্দিকী, সাংবাদিক সাইদুল ইসলাম মন্টু, লায়ন সামিম আহম্মেদ, মো. মহসিন খান, রাজাপুর সাংবাদিক ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি ও সমকাল প্রতিনিধি রহিম রেজা, দৈনিক শতকন্ঠ’র স্টাফ রিপোর্টার মো. আতিকুর রহমান, কালেরকন্ঠ বামনা প্রতিনিধি মনতোষ হাওলাদার, সাংবাদিক নির্ঝর কান্তি বিশ্বাস ননী, অ্যাডভোকেট তরিকুল ইসলাম খোকন সিকদার, উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি মিজানুর রহমান সোহাগ, নারী নেত্রী ও সংবাদকর্মী ইসরাত জাহান রুমা, আওয়ামী লীগ নেতা মনিরুজ্জামান মুকুল গোলদার, ও সাংবাদিক সাকিবুজ্জামান সবুর প্রমূখ।
উপস্থিত ছিলেন প্রভাষক মো. আবদুস সালাম, শিক্ষক দেবব্রত, মো. হাবিবুর রহমান, মো. মিজানুর রহমান, মিলন সিকদার, আওয়ামী লীগ নেতা মাহাবুবুর রহমান, সাংবাদিক ছরোয়ার হোসেন, যুবলীগ নেতা বাচ্চু জমাদ্দার, সাবেক সেনা কর্মকর্তা মো. খলিলুর রহমান, মো. আসলাম হোসেন, সাবেক বিজিবি অফিসার মো. শাহআলম খান, মো. মানিক আকন, সমাজ সেবক মৃনাল কান্তি রায়, মো. সোহানুর রহমান, আঃ কাদের, মো. মোশারফ হোসেন, পিএফজি সদস্য হাবিবা আক্তার ইয়ুথ লিডার তাসলিম আহম্মেদ তুর্য, মো. ফয়সাল সিকদার, সাদিয়া আক্তার ও সাদিয়া জাহান মীম সমকাল সুহৃদ সমাবেশের নেতৃবৃন্দ জনপ্রতিনিধি ও বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ এতে অংশ নেয়।
কাঁঠালিয়ার বিষখালী নদীতে প্রাকৃতিকভাবে জেগে ওঠা দৃষ্টিনন্দন ছৈলারচর। পাখির কলকাকলি। ঢেউয়ের গর্জন। বাতাসের তালে ঘন ম্যানগ্রোভ ছৈলারচরের ছৈলা পাতার শোঁ শোঁ শব্দ। সকাল বেলায় পূর্বাকাশে নদীর বুক চিরে জেগে ওঠা লাল সূর্যটা। বেলা শেষে পশ্চিম আকাশে হেলে পড়ার মতো দৃশ্য যে কোন জায়গায় দাড়িয়ে অবলোকন করার মতো অতুলনীয় স্পটের নাম ছৈলারচর। যেখানে রয়েছে লক্ষাধিক ছৈলা গাছ। আর ছৈলা গাছের নাম থেকেই জেগে ওঠা এ চরের নামকরণ করা হয়েছে ‘ছৈলারচর’। প্রতিদিন হাজার হাজার পর্যটক এখানে এসে প্রাকৃতির অপারদৃশ্য উপভোগ করেন।
পর্যটনের ব্যাপক সম্ভাবনা থাকলেও যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ রয়েছে নানা সংকট। তবু সেই সংকট উপেক্ষা করেই প্রকৃতির নয়নাভিরাম এই ছৈলারচর পর্যটকের মিলন মেলায় পরিণত হচ্ছে। পৃষ্টপোষকতা পেলে দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে গড়ে উঠবে বিষখালীর বুক চিরে জেগে ওঠা ছৈলারচর।
সমকাল সুহৃদ সমাবেশ সভাপতি অধ্যাপক মো.আবদুল হালিম বলেন, প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের আকর্ষণে নানা প্রতিকূলতা ডিঙিয়ে পর্যটকরা আসেন কিচুটা প্রশান্তির খোঁজে। সরকারি বেসরকারি উদ্যোগে এখানে পর্যটন অবকাঠামো গড়ে উঠলে পর্যটকদের যাতায়াত সহজ হতে পারে। আর এ থেকে সরকারের বিপুল পরিমান রাজস্ব আয় হতে পারে।
আকর্ষণীয় পর্যটন স্পটটি উপজেলার সদর ইউনিয়নের হেতালবুনিয়ায় মৌজার আওতাধীন। ৭০ একর জমির ওপর চরটি চারপাশ নদী বেষ্টিত। এখানকার যোগাযোগের একমাত্র মাধ্যম নৌপথ। এলাকাবাসীর দাবী, হেতালবুনিয়া মাদ্রাসা পর্যন্ত পাকা রাস্তা রয়েছে। শুধুমাত্র চরে যাওয়ার জন্য একটি ঝুলন্ত সেতু এবং চরের মধ্যে ঘুরানো কাঠের ব্রীজ করে দিলে পর্যটকরা সহজেই চরে গিয়ে চর এবং বিশাল জলরাশি দেখতে পারবেন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সুফল চন্দ্র গোলদার বলেন, ২০১৫ সালে ছৈলারচর স্থানটি পর্যটন স্পট হিসেবে চি‎হ্নিত করে পর্যটন মন্ত্রাণালয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে। পর্যটকদের সুবিধার্থে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ইতোমধ্যেই নানা পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সেখানে সেট, গভীর নলকূপ ও ঘাটলার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
সর্বস্বত্ত্ব © দৈনিক শতকন্ঠ - ২০২১ কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews