1. admin@dainikshatakantha.com : dainikshatakantha :
মঙ্গলবার, ১৮ মে ২০২১, ১০:৫১ অপরাহ্ন

ঝালকাঠি-রাজাপুর-ভান্ডারিয়া সড়কে কাজ সম্পন্নের আগেই খানা-খন্দ সৃষ্টি

  • প্রকাশিত : রবিবার, ২৭ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ২১৭ বার পড়া হয়েছে
সড়কে কাজ সম্পন্নের আগেই খানা-খন্দ
সড়কে কাজ সম্পন্নের আগেই খানা-খন্দ

মো. এনামুল হোসেন খান
ঝালকাঠি-রাজাপুর-ভান্ডারিয়া মহাসড়ক সংস্কারের আগেই খানাখন্দের সৃষ্টি ও সড়কের দু’ধারে ঝুঁকেপড়া বড়বড় গাছের কারণে যানবাহন চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। প্রতিনিয়ত ঘটছে দুর্ঘটনা। আর দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে যাত্রী ও চালকদের।
ঝালকাঠি জেলার মধ্যে রাজাপুর উপজেলাটি দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের একটি গুরুত্বপূর্ণ উপজেলা। ঢাকা, বরিশাল, ঝালকাঠি, পিরোজপুর, বাগেররহাট, খুলনা, বরগুনা, কাঁঠালিয়া, ভান্ডারিয়া, পাথরঘাটা, ভায়া রাজাপুর রুটে যাত্রিবাহী অসংখ্য বাস চলাচল করে প্রতিদিন।
এ মহাসড়ক দিয়ে দূর-পাল্লাসহ সব যানবহন চলাচল করে থাকে। খানা-খন্দে ভরা সড়কের কারণে দীর্ঘদিন এ রুটে পথচারিদেরও ভোগান্তিতে পড়তে হয়। রাজাপুর সোহাগ ক্লিনিকের পরিচালকা মো. আহসান হাবিব সোহাগ বলেন, রাস্তার দু’পাশে ঝুকে পড়া বড় বড় রেইন্ট্রি গাছের ডালপালা ঝুকে থাকায় যানবাহন চলাচল ঝুঁকিপূর্ণ।
সড়কের বাইপাস মোড়, বাঘরি বাজার, সমবায়, মিলবাড়ির সামনে, পাকাপোল, গাজিবাড়ি, গালুয়া বাজার, মধ্য বাঘরি, পিংরী, নলবুনিয়া বাজারসহ বিভিন্ন স্থানের অবস্থা নাজুক। এসব এলাকার সড়কের সংস্কার কাজ সম্পন্ন করার আগেই তৈরি হয়েছে বড় বড় গর্ত।
সড়ক বিভাগের নিয়োজিত ঠিকাদার এ সড়কের কাজ গত ৫/৬ মাস পূর্বে সম্পন্ন করলেও হস্তান্তরের পূর্বেই খানা-খন্দ সৃষ্টি হয়েছে। করোনা ও প্রাকৃতিক দুর্যোগের অজুহাতে খানা খন্দগুলো মেরামত করা হচ্ছে না।
গাড়িচালক মো. সাইদুল ইসলাম জানান, মহাসড়কের দুই ধারে বড় বড় গাছ ঝুঁকে আছে। ফলে অহরহ দুর্ঘটনা ঘটছে। গাছগুলো অপসারন জরুরী। এ ছাড়া খানা খন্দে যান চলাচলে আমাদের কষ্ট হচ্ছে। রাজাপুর বাইপাস মোড়ে ব্যবসায়ী মো. লাল মিয়া গোমস্তা জানান, তার দোকানের সামনে সড়কে বড় বড় গর্তেও সৃষ্টি হয়েছে। এতে বৃষ্টির পানি জমে থাকে। গাড়ি চলাচলের সময়ে ময়লা পানি সিটে ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালামাল নষ্ট হয়ে যায়।
ঝালকাঠি সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-সহকারী প্রকৌশলী মো. হুমাউন কবির জানান, মহাসড়কে ৩২কিলোমিটার রাস্তার মধ্যে কয়েক মাস আগে ১৪কিলোমিটার রাস্তা সংস্কার করা হলেও ঠিকাদার কাজ হস্তান্তর করেননি। খানাখন্দের বিষয়টি সংস্কারের জন্য ঠিকাদারকে চিঠি দেয়া হয়েছে। তিনি আরো বলেন, মহাসড়কের কাজ করোনা মহামারি ও বৃষ্টির কারণে ব্যাহত হচ্ছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আরো সংবাদ পড়ুন
সর্বস্বত্ত্ব © দৈনিক শতকন্ঠ - ২০২১ কর্তৃক সংরক্ষিত।
Theme Customized By BreakingNews